সমাজের আলো : কলারোয়া উপজেলার এক মাধ্যমিকের প্রধান শিক্ষকের হাত-পা ভেঙে দেওয়ায় উপজেলার জালালাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান নিশানসহ তার বাহিনীর ১০জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। পুলিশ এ ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করেছে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, কলারোয়া উপজেলার জালালাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান নিশানের নেতৃত্বে তার এলাকায় একটি বাহিনী গড়ে ওঠে। প্রকাশ্যে বিভিন্ন অপকর্ম করে বেড়ায় ওই বাহিনী। তাদের ভয়ে এলাকায় কেউ মুখ খুলতে পারে না। সম্প্রতি বাটরা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান নিশান ও প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেনের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিলো। এরই জের ধরে গত ৮ মে রাত ৮টার দিকে প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন (৪৯) পার্শ্ববর্তী তার মাছের পুকুর দেখে বাড়ি ফেরার পথে আরিফের বাড়ির পাশে বাঁশবাগানের সামনে রাস্তার উপর ওঠা মাত্রই পূর্বে থেকে ওৎ পেতে থাকা ওই ইউপি চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে তার লোকজন দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেনেকে গতিরোধ করে। এরপর বাহিনী প্রধান ইউপি চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান নিশানের হুকুম পেয়ে বাহিনী প্রধান নিশানসহ অন্যরা জাকির হোসেনকে এলোপাতাড়ীভাবে মারপিট করে হাত-পা ভাঙাসহ রক্তাক্ত জখম করে।লোকজন ছুটে আসলে তারা ওই প্রধান শিক্ষককে প্রাণনাশের হুমকী দিয়ে চলে যায়। বর্তমানে আহত প্রধান শিক্ষক কলারোয়া সরকারি হাসপাতালে ভর্তি আছেন। এ ঘটনায় প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেনের স্ত্রী পাপিয়া সুলতানা বাদী হয়ে গত বুধবার (১১ মে) বাটরা গ্রামের মশিউর রহমানের ছেলে জালালাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান নিশান (৩০), মৃত আলাউদ্দীন বিশ্বাসের ছেলে বজলে রহমান (৪৮), মৃত রুহুল আমিন বিশ্বাসের ছেলে মোখলেছুর রহমান মুকুল(৪৮), মৃত ইমাদুল বিশ্বাসের ছেলে সেন্টু বিশ্বাস (৪৭) ও মন্টু বিশ্বাস (৪৫), ফজলে বিশ্বাসের চেলে রাসেল বিশ্বাস (২৬), মন্টুর ছেলে জিকো বিশ্বাস (২২), ইমান আলী গাজির ছেলে ডালিম গাজি (৪০), নূর ইসলাম বিশ্বাসের ছেলে বাবু বিশ্বাস (৩৮), মৃত নূর ইসলাম বিশ্বাসের ছেলে তরিকুল ইসলামের (৪৮) নাম উল্লেখ করে কলারোয়া থানায় গত ১১মে মামলা করেন। যার নং-১৮, কলারোয়া থানার ওসি নাছিরউদ্দীন মৃধা মামলার সত্যতা স্বীকার করে জানান, ইতোমধ্যে আসামী মোখলেছুর রহমানকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।




Leave a Reply

Your email address will not be published.