সমাজের আলো : চট্টগ্রাম নগরের বায়েজিদ বোস্তামী থানায় দায়ের হওয়া একটি মামলায় ২০১৯ সালের ২০ জুন রাশেদুল ইসলাম বাবু (২৭) ও সুজন গাজী (৩৫) নামে দুজনকে কারাগারে পাঠান আদালত। সে মামলায় রাশেদুল ওই বছরের ২৩ জুলাই পর্যন্ত এবং সুজন ২৫ জুলাই পর্যন্ত কারাগারে ছিলেন। কিন্তু কারাগারে থাকার সময়েই ৮ এবং ১০ জুলাই দুটি ঘটনায় মো. আলফাজ উদ্দিন নামে এক ব্যক্তির বসতবাড়িতে ভাঙচুর, চুরি, চাঁদাবাজি ও মারধরের অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে আদালতে নালিশি মামলা হয়েছে। আর সেই মামলায় অন্য আসামিদের পাশাপাশি রাশেদুল-সুজনের বিরুদ্ধেও আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেছেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) তদন্ত কর্মকর্তা।

এ ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর সংশ্লিষ্ট মহলে তোলপাড় চলছে। যদিও পিবিআইয়ের তদন্ত কর্মকর্তার দাবি, সুষ্ঠুভাবে তদন্ত করে আসামিদের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, যে নালিশি মামলায় পিবিআইয়ের তদন্ত কর্মকর্তা প্রতিবেদন দিয়েছেন, সে মামলার প্রধান আসামি একটি হত্যা মামলার বাদী। নালিশি মামলার আরও তিন আসামি ওই হত্যা মামলার সাক্ষী। নালিশি মামলার আসামিপক্ষের অভিযোগ, হত্যা মামলার সমঝোতা করতে চাপের অংশ হিসেবে পাল্টা নালিশি মামলাটি করা হয়। আর পিবিআইয়ের তদন্ত প্রতিবেদন এক রকমের ‘প্রভাবে’ তৈরি হয়েছে বলেও অভিযোগ তাদের।

আদালত সূত্রে জানা যায়, বায়েজিদ বোস্তামী থানা এলাকায় মারামারির একটি মামলায় (১৩৮/১৯) ২০১৯ সালের ২০ জুন রাশেদুল ও সুজনকে কারাগারে পাঠান আদালত। মামলার আদেশ সূত্রে জানা যায়, সে বছরের ২৩ জুলাই পর্যন্ত রাশেদ এবং ২৫ জুলাই পর্যন্ত সুজন কারাগারে ছিলেন।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *