সমাজের আলো ঃ বার্সেলোনার মূল দলে অভিষেকের পর একটা শিরোপার জন্য এত লম্বা সময় কখনো অপেক্ষা করতে হয়নি লিওনেল মেসিকে। শিরোপাশূন্য গত মৌসুমে ভরাডুবির পর এবারও ধুঁকছিল বার্সেলোনা। শেষ ষোলোতেই শেষ চ্যাম্পিয়ন্স লিগ। এল ক্লাসিকোয় হারের পর লা লিগায় শিরোপা হাতছাড়া। আরেকটি শিরোপাশূন্য মৌসুমের শঙ্কা কাটাতে শেষ ভরসা ছিল কোপা দেল রে।অবশেষে শিরোপাখরা কাটাল স্প্যানিশ জায়ান্ট বার্সেলোনা। প্রায় দুই বছরের অপেক্ষার স্পেনের ঘরোয়া ফুটবলের দ্বিতীয় মর্যাদার আসল কোপা দেল রে’তে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে রোনাল্ড কোম্যানের শিষ্যরা। শিরোপা জয়ে কাণ্ডারীর ভূমিকায় মেসি ছিলেন অনন্য। করলেন জোড়া গোল। শনিবার রাতে সেভিয়ার মাঠে অ্যাটলেটিকো বিলবাওয়ের বিপক্ষে ৪-০ গোলের বড় জয়ে শিরোপা নিজেদের করে নিয়েছে বার্সেলোনা। মেসির জোড়া গোল ছাড়া বাকি দুই গোল এসেছে গ্রিজম্যান-ডি ইয়ংয়ের পা থেকে। এছাড়া জোড়া এসিস্টও করেছেন ডি ইয়ং।কোপা দেল রে’র ইতিহাসের সফলতম দল কাতালানরা। রেকর্ড ৩০ বার এই শিরোপা জিতে বিলবাওয়ের বিপক্ষে মাঠে নেমেছিল গতকাল। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৩টি শিরোপা বিলবাওয়ের। সাদা চোখে বার্সাকে ফেভারিট মনে হলেও নিকট অতীত চোখ রাঙাচ্ছিল মেসিদের। মাত্র তিন মাস আগে এই মাঠেই স্প্যানিশ সুপার কাপের ফাইনালে বার্সাকে ৩-২ গোলে হারিয়ে শিরোপা উৎসব করেছিল বিলবাও। তবে সমর্থকদের সেই শংকা উবে গেল ছন্দময় মেসিকে দেখেই। ম্যাচের প্রথমার্ধে বার্সার পারফরম্যান্স সমর্থকদের সেই হারকে বারবার মনে করিয়ে দিচ্ছিল নিশ্চিত। ম্যাচের প্রথমার্ধে ৮৮ ভাগ সময় বলের দখল রেখেও গোলের দেখা পায়নি বার্সেলোনা।গোলশূন্যাবস্থায় শেষ হয় প্রথমার্ধ। দ্বিতীয়ার্ধে ফিরে গোল মিসের মহড়ায় নাম লেখান গ্রিজম্যান, বুসকেটস, জর্দি আলবারা। কাতালান সমর্থকরা আরো ভেঙে পড়ে। শিরোপা হয়ত আর জুটবেই না মেসিদের! অবশেষে ম্যাচের ৬০ মিনিট থেকে শুরু হয় বার্সার তুফান। ডি ইয়ংয়ের ডানদিক থেকে আসা ক্রসে পা ছুঁইয়ে প্রথম লিড নেন বার্সার ফরাসি তারকা গ্রিজম্যান। ওই গোলের মিনিট তিনেক পর আলবার পাসে ডি ইয়ং ব্যবধান দ্বিগুণ করেন। এরপর জাদু দেখান বার্সা অধিনায়ক মেসি। ম্যাচের ৬৮ মিনিটের সময় নিজেদের অর্ধ থেকে বল নিয়ে সতীর্থদের সঙ্গে ছোট ছোট পাস দিয়ে বল নিয়ে ঢুকে পড়েস বিলবাওয়ের ডি-বক্সে। ছয় গজের বক্সের মাথা দুরহ এক শটে জাল কাঁপান মেসি।ম্যাচের ৭২ মিনিটের সময় আলবার এসিস্টে বিলবাওয়ের জালে একহালি পূরণ করেন বার্সা অধিনায়ক। অর্থাৎ মেসিদের ১২ মিনিটের ঝড়ে কুপোকাত বিলবাও। শেষদিকে আরও একটি গোল করেন গ্রিজম্যান। কিন্তু অফসাইডের কারণে সেটি বাতিল হয়ে যায়। তবে তাতে মন খারাপের উপলক্ষ্য খোঁজার প্রশ্নই ওঠে না। ততক্ষণে ৪-০ তে ম্যাচ জিতে কোপা দেল রে’র শিরোপা রোনাল্ড কোম্যানের ভাগ্যে জুটে গেছে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *