সমাজের আলো : উপকূলে বৈরী আবহাওয়া, হাসপাতালে নেয়ার পথে ট্রলারেই সন্তানের জন্ম‘বাগে’ করে ট্রলারে উঠানো হয় প্রসূতিকে। ছবি: পদ্মপুকুর গ্রামের কলেজছাত্র শাহিন আলম
মধ্যরাতে প্রসব যন্ত্রণা ওঠে সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার পদ্মপুকুর ইউনিয়নের চন্ডিপুর গ্রামের ইমরান হোসেনের স্ত্রী কেয়ামনির (২০)। দ্বীপ ইউনিয়ন হওয়ায় ইচ্ছা করলেই সঙ্গে সঙ্গে তাকে হাসপাতালে নেয়া সম্ভব নয়। একই সঙ্গে মুষলধারে বৃষ্টি হচ্ছিল। রাস্তাঘাট কাদা পানিতে টইটম্বুর। এই দ্বীপ ইউনিয়নে সচরাচর মোটরসাইকেলই একমাত্র যানবাহন হিসেবে ব্যবহৃত হলেও কাদা পানিতে তাও চলার জো নেই।ওদিকে প্রসব যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছেন প্রসূতি। পরিবারের পক্ষ থেকে গ্রাম্য চিকিৎসক ও ধাত্রী দিয়ে শনিবার (৩১ জুলাই) দুপুর ১২টা পর্যন্ত নরমাল ডেলিভারির চেষ্টা করা হয়। কিন্তু সব চেষ্টাই যখন বিফলে যাচ্ছে, তখন উপায়ন্তর না পেয়ে স্বামী-শ্বশুর মিলে বাগে করে (ভারী জিনিস ঘাড়ে বহনযোগ্য স্থানীয়ভাবে তৈরি সরঞ্জাম) কেয়ামনিকে নিয়ে রওনা হন খোলপেটুয়া নদীর পাতাখালী খেয়াঘাটের দিকে। সঙ্গে ছিল ধাত্রীসহ অন্যান্য স্বজনরা।খেয়াঘাটে পৌঁছে নিজেদের ট্রলারে রওনা হন নওয়াবেকী ঘাটের উদ্দেশে। সেখানে পৌঁছে সড়কপথে শ্যামনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পৌঁছাতে যেতে হবে আরও ১২ কিলোমিটার। এরই মধ্যে দুপুর দেড়টার দিকে ট্রলারেই ফুটফুটে সন্তান প্রসব করেন কেয়ামনি।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *