সমাজের আলো : সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎস্যক মিঠুন কুমার বিশ্বাসের বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। বুধবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে আশাশুনি উপজেলার সরাফপুর গ্রামের জাহিদ হাসানের স্ত্রী তাহমিনা খাতুন এই অভিযোগ করেন। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আমার নিকট অত্মীয় গোলাম রসুলের ছেলে মোঃ সোহাগ হোসেন সহ অন্যন্যারা গত ২০২০ সালের ৬ নভেম্বর আমাকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে গুরুতর রক্তাক্ত জখম করে। সোহাগ হোসেন ধারালো দা দিয়ে আমার মাথার বাম পার্শ্বে গুরুতর কাটা জখম করে। এঘটনার পর আমি ৬ নভেম্বর থেকে ১৬ নভেম্বর পর্যন্ত আশাশুনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎস্যাধীন ছিলাম। আমার ক্ষতস্থানে ৪টি সেলাই দিতে হয়েছে।স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎস্যক মিঠুন কুমার বিশ্বাস আমাকে চিকিৎসা প্রদান করেন। এঘটনায় আমার পিতা বাদি হয়ে আশাশুনি থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলাটি বর্তমানে সাতক্ষীরার আমলী ৮ নং আদালতে বিচারাধীন আছে। তাহমিনা খাতুন অভিযোগ করে বলেন, সোহাগ হোসেন ধারালো দায়ের কোপে আমি গুরুতর জখমপ্রাপ্ত হলেও কর্তৃব্যরত চিকিৎস্যক জখম সংক্রান্ত প্রদত্ত মেডিকেল সনদে সাধারণ জখমের কথা উল্লেখ করেছেন। ডাঃ মিঠুন কুমার বিশ্বাস আমার প্রতিপক্ষের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে জখমী সনদে মাথায় কোপের অঘাত উল্লেখ না করে আমাকে ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত করেছেন। তিনি আরো বলেন, ডাঃ মিঠুন কুমার বিশ্বাস তঞ্চকীমূলক মেডিকেল সনদ প্রদান করায় আমি ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছি। তিনি ওই দুর্নীতিবাজ ডাক্তারের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে স্বাস্থ্যমন্ত্রী সহ সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *