শেখ সিরাজুল ইসলাম : বাংলাদেশের সাদা সোনা খ্যাত চিংড়িতে পুশের অভিযোগ নতুন কিছু নয়। পুশকৃত চিংড়ি মাছ বিনষ্ট সহ জেল-জরিমানা করেও থামানো যাচ্ছে না চিংড়িতে পানি-সহ অপদ্রব্য পুশ। প্রয়োজনের তুলনায় অভিযান খুবই সিমিত হওয়ায় এবং জরিমানার পরিমান কম হওয়ার কারনে ডিপো মালিকরা নির্ভয়ে পুশ বানিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন এমনটাই দাবী সকলের। সাতক্ষীরার তালা উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের চিংড়ি ডিপোতে চলছে জমজমাট পুশ বানিজ্য। উপজেলার খেশরা ইউনিয়ন সহ কয়েকটি ইউনিয়নে ডিপো আছে এমন বাজারগুলোতে খোজ নিয়ে এ তথ্য পাওয়া গেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধীক প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, চিংড়িতে পুশকরে ওজন বাড়ানো এখন আর গোপন কিছু নয়, বিভিন্ন সময়ে ডিপোর ভিতরে তাকালে দেখাযায় চিংড়িতে ইনজেকশন দেয়া হচ্ছে, আবার চিংড়ি মাছ ড্রামে পানির ভিতরে ঢুকিয়ে রেখে ড্রাম পুশ করা হচ্ছে। অনুসন্ধানে আরো জানাগেছে, কিছু কিছু চতুর ডিপো মালিক মানুষের নজর এড়াতে মাছ বাড়িতে রেখে পুশ করিয়ে ডিপোতে নিয়ে আসছে। উপজেলার কিছু ডিপো মালিক পুশ বাণিজ্যের সাহায্যে রাতারাতি ফুলে-ফেঁপে উঠেছে এমন অভিযোগও পাওয়া গেছে। আবার কোন ডিপো মালিক পুশ বানিজ্যের সাহা্য্যে ফুলে ফেপে দিনমজুর থেকে হয়েছেন একাধিক বড় বাড়ি গাড়ির মালিক। সাতক্ষীরার ওন্য উপজেলার তুলনায় তালা উপজেলায় পুশ বিরোধী অভিযান খুবই সিমিত, যে কারনে এই উপজেলার ডিপোগুলোতে পুশ বানিজ্য চালিয়ে যেতে ডিপো মালিকদের কোন সমস্যা সৃষ্টি হয়না। নিয়মিত পুশ বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে পুশকৃত চিংড়ি বিনষ্ট সহ জেল জরিমানা ছাড়া কোন ভাবেই পুশ বানিজ্য বন্ধ করা সম্ভব নয়। আন্তর্জাতিক বাজারে বাংলাদেশের সাদা সোনা খ্যাত চিংড়ি মাছের সুনাম অক্ষুন্ন রাখতে দেশের ডিপোগুলোতে কঠোরভাবে পুশ বিরোধী অভিযান পরিচালনার কোন বিকল্প নেই।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *