সমাজের আলো : আমার বাবার একটা পুরাতন মোটরসাইকেল ছিল, যেটাতে অন্য চাবি দিলে খুলে যেত। সেখান থেকেই আমার ধারণা ছিল পুরাতন গাড়িতে চাবির ঘাট নষ্ট থাকে, এজন্য অন্য চাবি একটু চেষ্টা করলেই খুলে যাবে। আমার কাছে যখন টাকা-পয়সা না থাকতো তখন চুরির বুদ্ধি আসে। তখন ভেবেছি অল্প কষ্ট করে মোটরসাইকেল চুরি করা সম্ভব। আর পুরাতন ধারণা থেকেই মোটরসাইকেল চুরি শুরু করেছি। এভাবেই নিজের চুরির বিদ্যার কথা বলছিলো সাতক্ষীরা ডিবি পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হওয়া আন্তঃ বিভাগীয় চোর চক্রের মূল হোতা।

সে জানায়, প্রথমে আমরা দোকান থেকে কয়েকটি মোটরসাইকেলের চাবি কিনি। এরপর আমরা পুরাতন মোটরসাইকেল টার্গেট করে আমাদের কাছে থাকা চাবি দিয়ে তালা খুলে মোটরসাইকেল নিয়ে পালাই। মোটরসাইকেলগুলো খুলনা সহ বিভিন্ন এলাকায় বিক্রি করা হয়। প্রাথমিকভাবে গত ছয় মাসে চারটা মোটরসাইকেল চুরি করেছে বলে স্বীকারোক্তি দেয় এই চোর চক্রের সদস্য নাইম হাসান (১৯)।

তবে শেষ রক্ষা হয়নি। শুক্রবার (১ ডিসেম্বর) সকালে সাতক্ষীরা শহরের আমতলা মোড় যাত্রী ছাউনির সামনে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে আন্তঃ বিভাগীয় চোর চক্রের মূল হোতাসহ ২ জনকে আটক করে সাতক্ষীরা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের সদস্যরা। আটককৃতরা হলো, বাগেরহাট জেলার বারইপাড়া ইউনিয়নের হাফিজুল ইসলামের ছেলে মোঃ নাইম হাসান (১৯), ও সাতক্ষীরা সদরের মাছখোলা গ্রামের জিয়াউর রহমানের ছেলে মোঃ রবিউল ইসলাম (২৩)।

জেলা গোয়েন্দা শাখার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তারকে ফয়সাল ইবনে আজিজ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সাতক্ষীরা শহরের আমতলা মোড় যাত্রী ছাউনির সামনে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে অপরাধীদের আটক করতে সক্ষম হয় ডিবি পুলিশের সদস্যরা। আটককৃতদের তথ্যমতে ১টি চোরাই মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়। আসামিরা এরআগে জেলাসহ খুলনা বিভাগের বিভিন্ন এলাকায় মোটরসাইকেল চুরি করে আসছিল বলে স্বীকার করে। আটককৃত আসামিদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়টি পক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানান ওসি তারকে ফয়সাল ইবনে আজিজ।




Leave a Reply

Your email address will not be published.