সমাজের আলো : ভোমরা স্থলবন্দর ট্রান্সপোর্ট মালিক সমবায় সমিতির নির্বাচন এর তফসিল ঘোষণা না করায় সাধারণ সদস্যদের অভিযোগের ভিত্তিতে সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারী) সকাল ১০ টায় উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা করিমুল হক সরজমিনে তদন্ত করেন। তদন্তের আগে সদর উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা পত্রের মাধ্যমে নির্বাচন কমিটির সভাপতি ও ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতিকে উপস্থিত থাকর জন্য জালালেও তদন্ত কালে তারা কেউই উপস্থিত ছিলেন না। মেসার্স মুন্নি ট্রান্সপোর্ট এজেন্সির মালিক মোঃ লুৎফর হোসেন মন্টু বলেন, তদন্ত কালে ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি দেলোয়ার হোসেনের কাছে উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি ভোমরায় উপস্থিত থেকে বলেন আমি রাঙামাটি আসছি। এ সময় উপস্থিত সদস্যদের সাথে উপজেলা সমবায় অফিসার নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার বিষয়ে জানতে চাইলে তারা সবাই বলেন কোন নির্বাচনি কমিটি তফসিল কমিটি ঘোষণা করেন নাই। তারা চুপিসারে ১২ টি নমিনেশন বিক্রি দেখিয়ে একটি মনগড়া পকেট কমিটি তৈরির পায়তারা চালাচ্ছে। এসময় অফিস সহকারী সাজু এবং সালামের কাছে নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার ব্যাপারে জানতে চাইলে তারা সরল স্বীকারোক্তি দেয়। তারা জানায় নির্বাচনের কোন প্রক্রিয়া বা কায্যক্রম আমাদের চোখে পড়েনি। তখন তারা অফিসের নোটিশ বোর্ডের দরজা খুলে দেখান সেখানে কোন নির্বাচন সংক্রান্ত কাগজ আছে কি না। তবে অফিসের নোটিশ বোর্ডে তফসিলের কপি টানানোর বিধান থাকলেও উপজেলা অফিসার সেটা ফাকা দেখে মুঠোফোনে নোটিশ বোর্ডের ছবিও ধারন করে নিয়েযায় । এ সময় সাধারন সদস্যরা বলেন এই সমিতিটি জন্ম লগ্ন থেকে কখনো নির্বাচনের মুখ দেখেনি প্রতিবারই এই ভাবে সাধারন সদস্যদের ভোটের অধিকার হরন করা হয়েছে। এই বার মনে করেছিলাম একটি অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে আমরা আমাদের নেতা নির্বাচন করবো এখন সেটাও যদি গুড়ে বালি হয় তাহলে সকল ব্যবসায়িরা এই প্রতিষ্ঠান থেকে মুখ ফিরিয়ে নিবে। অবশেষে তদন্তকারী কর্মকর্তা একতরফাভাবে তদন্ত কাজ শেষ করে সাধারন সদস্যদের আশ্বস্ত করেন এ সংগঠনের সকল প্রক্রিয়া বৈধ ভাবেই সম্পাদন হবে। এ বিশ্বাস আপনারা সমবায়ের প্রতি রাখতে পারেন। সাধারণ শেয়ার সদস্য মাকসুদুর রহমান বলেন, আমার সাথে ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি দেলোয়ার হোসেন এর ফোনে কথা হলে তিনি বলেন ১২ টি নমিনেশন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় বিক্রি হয়েছে। মাকসুদুর বলেন নির্বাচন তফসিল ঘোষণা না করে তারা সর্বত্রই এমন প্রচার করে যাচ্ছে। মেসার্স এএম ট্রান্সপোর্ট এর পরিচালক মনিরুল ইসলাম মন্টু বলেন,তাদের ষড়যন্ত্র ও নীল নকসা বুঝতে পেরে এই নির্বাচন কমিটি থেকে মোঃ আলমগীর হোসেন গত ১১ ফেব্রুয়ারী তারিখে নির্বাচন পরিচালনা কমিটি থেকে নিজে পদত্যাগ করেন। তিনি উপজেলা সমবায় অফিসার বরাবর পদত্যাগ পত্র জমাও দেন। এছাড়া তিন সদস্য বিশিষ্ট নির্বাচন কমিটি গঠন করে নির্বাচন পরিচালনার কথা থাকলেও পদত্যাগের পর সেই শূন্য পদে কাউকে নিয়োগ না দিয়েই তারা বাকি দুই জনকে দিয়ে এই নিল নকসা পকেট কমিটির তৈরির পায়তারা চালাচ্ছে। যেটা সমবায় আইনে অবৈধ। সমিতির সাধারন শেয়ার সদস্যরা খুবই ক্ষুব্দ তাদের আবেদন আমাদের ছোট একটি সংগঠন নিয়ে কেন এতো রাজনীতি হচ্ছে এটা তাদের বোধগম্য নয়, তারা বলেন যদি কামরুল ও দেলোয়ারের এই কর্মকানড প্রত্যাহার না করে তাহলে বিভিনন কর্মসুচি সহ জেলা প্রসাশক ও বিভাগীয় জয়েন্ট রেজিস্টার বরাবর স্মারক লিপি প্রদান করবেন বলে ও জানিয়েছে সমিতির সাধারণ শেয়ার সদস্যরা।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *