সমাজের আলো : সাতক্ষীরার সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ শেখ মফিজুর রহমান মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামী রায়হানুরের রায়ের পর্যবেক্ষণে উল্লেখ করেন, মামলার ঘটনা, সাক্ষীদের বক্তব্য পর্যালোচনা, পারিপার্শ্বিকতা ও বাস্তব অবস্থা বিবেচনায় দেখা যায় যে, ঘটনাস্থল ভিকটিম তথা মৃতদের নিজেদের শয়নকক্ষ, যা তাদের জন্য নিরাপদ স্থান এবং ঘটনার সময় গভীর রাত, যখন ভিকটিমগণ ঘুমে আচ্ছন্ন ছিলেন। বারংবার আঘাত পূর্বক ভিকটিমদের মৃত্যু নিশ্চিত করা হয় যাতে স্পষ্টত: নৃশংসতা ও নির্মমতার পরিচয় বহন করে।ভিকটিমদের খুন করার পর অপরাধ গোপন করার চেষ্টা করা হয়। আসামী রায়হান স্বীকার করেছে খুনের ঘটনায় ব্যবহৃত চাপাতি সে নিকটবর্তী পুকুরে নিক্ষেপ করে লুকিয়ে রাখে। আসামীর সাথে তার ভাই ও ভাবীর মনোমালিন্য থাকলেও নিষ্পাপ শিশু সিয়াম ও তাসনিমের সাথে তার কোন শত্রুতা ছিল না। ভিকটিমগণ ঘুমন্ত অবস্থায় থাকায় এই নৃশংস ঘটনা প্রতিরোধের কোন চেষ্টা করতে পারেনি।তারা (ভিকটিমগণ) নিতান্ত অসহায় অবস্থায় খুনের স্বীকার হন। ভিকটিমগণ আসামী রাহানুরের আপন ভাই-ভাবী এবং ভাইয়ের পুত্র ও কন্যা। শুধু তাই নয়, এই খুনের ঘটনার পরিকল্পনার অংশ হিসাবে ভিকটিমদের আঘাত করার পূর্বে চেতনা নাশক ব্যবহার করা হয়। আসামী কর্তৃক তার রক্তসম্পর্কীয় ও নিকটজনদের হত্যা করা সমাজের জন্য কলঙ্কজনক এবং একই সাথে সমাজ সংসার ও রাষ্ট্রের জন্য হুমকি স্বরুপ।আসামী কর্তৃক কৃত অপরাধ পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রের সতত: বিশ্বাস এবং চিরাচরিত আস্থার সম্পর্ককে আঘাত করেছে। পারিবারিক বন্ধনকেও প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। ভিকটিমগণ আসামীর পরম আত্মীয় হিসাবে আসামীর দেয়া কোকোকোলা ও ¯িপ্রড পান করে নিশ্চিন্তে ঘুমন্ত অবস্থায় ছিলেন। উক্ত ঘুমন্ত অবস্থায় আসামী ভিকটিমদেরকে নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করে উক্ত হত্যার দায়ভার অকপটে স্বীকার করে নিজেকে আত্মস্বীকৃত খুনি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে।ফলে উক্ত আসামীর সাজা প্রদান করার ক্ষেত্রে কোন ধরণের অনুকম্পা ও সহানুভূতি প্রদর্শন করা ন্যায় বিচারের বৃহত্তর কল্যাণের স্বার্থে সমীচীন নয়। বরং এই মামলায় সার্বিক অবস্থা বিবেচনায় বলা যেতে পারে আসামীকে মৃত্যুদন্ডে দন্ডিত করা হইলেই কেবল ন্যায় বিচার সুনিশ্চিত হবে। সে কারণ আসামী রাহানুরকে পেনাল কোডের ৩০২ ধারায় সর্বচ্চো শাস্তি মৃত্যুদন্ড প্রদানের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হলো এবং আসামীর মৃত্যু না হওয়া পর্যন্ত তার গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলিয়ে এই মৃত্যুদন্ড কার্যকর করার জন্য আদেশ দেওয়া গেল।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *