তালা প্রতিনিধি:  তালা উপজেলার পাখিমারা বিলে টিআরএম প্রকল্পভূক্ত এলাকার জমির ক্ষতিপূরণ প্রাপ্তিতে জমির মালিকদের সহায়তা প্রদান ও এলাকার জনসচেতনতা সৃষ্টি বিষয়ক কমিটির সভা পাটকেলঘাটাস্থ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারী) বিকালে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন তালা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) এস এম তারেক সুলতান। উপজেলা ভূমি অফিসের আয়োজনে এবং বে-সরকারী উন্নয়ন সংস্থা উত্তরণের সহযোগিতা সভায় বক্তব্য রাখেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের এসডিই মুন্সী আসাদুল্লাহ, উত্তরণ পরিচালক শহিদুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় পানি কমিটির সভাপতি অধ্যক্ষ এবিএম শফিকুল ইসলাম, পানি কমিটির অধ্যাপক হাশেম আলী ফকির, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের প্রাক্তন ডেপুটি কমান্ডার আলাউদ্দীন জোয়ার্দ্দার, উপজেলা পানি কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ময়নুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মীর জিল্লুর রহমান, জালালপুর ইউনিয়নর আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ রবিউল ইসলাম মুক্তি, ইউপি সদস্য আশরাফুল ইসলাম, রূপালীর পরিচালক শফিকুল ইসলাম, উত্তরণের মনিটরিং অফিসার তাসলিমা আক্তার শিখা, উত্তরণ কর্মকর্তা দীলিপ সানা ও ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিক মোঃ এবাদুল সরদার প্রমুখ। সভায় বক্তারা বলেন, কপোতাক্ষ নদ খননের সময় পাখিমারা বিলের প্রায় ১হাজার ৫শত৬২ একর জমি সরকারী ভাবে অধিগ্রহণ করা হয়। বর্তমানে পাখিমারা বিলকে টিআরএম অন্তর্ভূক্ত করে কপোতাক্ষ খনন,স্লুইস গেট সংস্কার এবং তীরবর্তী খালগুলো খননের কারণে সাতক্ষীরার তালা,কলারোয়া, যশোরের মনিররামপুর ও কেশবপুর উপজেলা জলাবদ্ধতার হাত থেকে রেহাই পেয়েছে। এলাকায় জলাবদ্ধতা না থাকায় কৃষকরা নির্বিঘ্নে বিভিন্ন ফসল উৎপাদন করতে পারছে। সাথে সাথে টিআরএম অন্তর্ভূক্ত পাখিমারা বিলে পলি পড়ে প্রায় ৩ ফুট উঁচু হয়েছে। জনগণ এর সুফল ভোগ করতে শুরু করেছে। কিন্তু ২০১৩ সাল হতে ২০২১ সাল পর্যন্ত পাখিমারা বিলের ২হাজার ২শত ৯৮ জন জমির মালিকদের ফসলের ক্ষতিপূরণ বাবদ সরকারীভাবে ১ কোটি ৭৮ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়ার পর শর্ত সাপেক্ষে কিছু জমির মালিক মাত্র ২ বছরের ক্ষতিপূরণ পেয়েছে। বাকী টাকা আজো পায়নি। দীর্ঘ প্রায় ৮ বছর যাবত কোন ক্ষতিপূরণ না পাওয়ায় বিলের জমি মালিকরা পরিবার পরিজন নিয়ে সীমাহীন কষ্টের মধ্যে দিনাতিপাত করছেন। এছাড়া বিলের চারিপাশে পেরিফেরিয়াল বাঁধ নির্মানে ত্রুটি এবং ঘুর্ণিঝড় আম্ফানের তান্ডবে ৫ জায়গার বাধ ভেঙ্গে আশপার্শ্বের ৮টি গ্রাম, ফসলের ক্ষেত,মাছের ঘের তলিয়ে ব্যপক ক্ষতি হয়েছিল। একদিকে সরকারীভাবে জমির অধিগ্রহণের পর ক্ষতিগ্রস্ত জমি মালিকরা ক্ষতিপূরণ তো পায়নি বরং আরো আশপাশের গ্রামে বাঁধের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হলেও তারাও কোন ক্ষতিপূরণ পায়নি। এছাড়া টিআরএম এর জন্য সংযোগ খাল খননের সময় ৩৫টি পরিবার উচ্ছেদ করার পর বে-সরকারী উন্নয়ন সংস্থা উত্তরণ তাদেরকে পূনর্বাসনের ব্যবস্থা করে দেয়। এরপরেও আবারো টিআরএম প্রকল্পের মেয়াদ বৃদ্ধির খবরে ক্ষতিগ্রস্থ জমি মালিকরা চরম হতাশার মধ্যে পড়েছেন। বিষয়টি নিয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড এবং সংশ্লিষ্ট সরকারী দপ্তরের দায়িত্বরতরা জানান অধিগ্রহনের বিষয়টি নিশ্চিত, তবে ক্ষতিগ্রস্ত জমি মালিকদের কিভাবে ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে তার কোন নীতিমালা এখনো তাদের হাতে আসেনি। তবে এ ব্যাপারে ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিকরা সরকারী নিয়ম মেনে বকেয়া বছর এবং আগামী বছরগুলো যত দ্রুত ক্ষতিপূরণের অর্থ পেতে পারে তার জন্য সংশ্লিষ্ট সরকারের দায়িত্বপ্রাপ্তদের প্রতি সহজ শর্তে প্রদানের আহবান জানান।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *