সমাজের আলো:গাছেরও জিবন আছে। সমাজের কিছু নিষ্ঠুর মানুষ সেটা জেনেও মানতে নারাজ। অথচ সেই নির্মম নিষ্ঠুর মানুষগুলো বেছে আছে গাছের দান অক্সিজেন নিয়ে। আবার যাত্রাকালিন ক্লান্তি দুর করে পরম মমতাময়ী গাছের শিতল ছায়ায়। প্রতিদিন হাজারো মানুষকে ছায়া দানকারী তালার শালিখা বাজার চার রাস্তার মোড় ও শালিখা গুচ্ছগ্রাম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠের বটগাছটির দিকে তাকালে মনে হবে এটি কোন গাছ নয় সাইনবোর্ড ওয়াল। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বটগাছটির গুড়ি থেকে ডাল সবই ঢেকে আছে ডাক্তার ক্লিনিক সহ ব্যবসায়িদের প্রচারের জন্য লাগানো সাইনবোর্ডে। দুর থেকে গাছের গোড়ায় অথবা পাতার দিকে না তাকালে বোঝার উপায় নেই যে এটি একটি গাছ বা বটগাছ। অসংখ্য এই সাইনবোর্ড লাগানো হয়েছে জিবন্ত গাছটিতে বড় বড় পেরেক মেরে এবং তারের শক্ত বাধন দিয়ে। জিবন্ত গাছটিতে অসংখ্য পেরেক বসানো ও তারের শক্ত বাধনের ফলে গাছটির গায়ে ক্ষত দেখা দিয়েছে। ধীরে ধীরে কমে আসছে গাছটির সতেজতা। মানুষের নির্মম নিষ্ঠুরতার শিকার বটগাছটি আজ মৃত প্রায়। এভাবে চলতে থাকলে পরম মমতাময়ী বটগাছটি দ্রুত মারা যাবে এমনটাই ধারনা করছেন এলাকাবাসি। বটগাছটির সকল সাইনবোর্ড অপসারন করে গাছটিকে নতুন জিবন ফিরিয়ে দেয়ার জন্য সমাজের আলোর পক্ষ থেকে প্রসাষনের প্রতি বিনিত অনুরোধ জানানো হচ্ছে।





Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *