যশোর প্রতিনিধি: যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার বোয়ালিয়া গ্রামের নিহত মনিবাবুকে হত্যার অভিযোগে যশোর আদালতে মামলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার নিহতের স্ত্রী মালতী বিশ্বাস বাদী হয়ে আটজনকে আসামি করে এ মামলা করেন। জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মঞ্জুরুল ইসলাম বিষয়টি আমলে নিয়ে এ বিষয়ে বাঘারপাড়া থানায় কোনো মামলা আছে কিনা তা জানাকে বাঘারপাড়া থানাকে নির্দেশ দিয়েছেন। মামলার আসামিরা হলেন, বাঘারপাড়া উপজেলার বোয়ালিয়া গ্রামের শতদল বিশ্বাসের স্ত্রী অর্চনা রানী, অর্চনার ছেলে বিপ্লব বিশ্বাস, একই এলাকার মৃত তারক বিশ্বাসের ছেলে তাপস বিশ্বাস, খোকন অধিকারীর ছেলে রবেন অধিকারী, মৃত হিরালাল বিশ্বাসের ছেলে বিকাশ বিশ্বাস, ছোট বহরামপুর গ্রামের মৃত প্রফুল্ল রায়ের ছেলে অনিমেষ রায়, মৃত নির্মল ঘোষালের ছেলে লিটন ঘোষাল ও সুভাষ বিশ্বাসেরছেলে হরিদাশ।

মামলার অভিযোগে বাদী উল্লেখ করেন, ৩০ বছর আগে নিহত মনিবাবুর সাথে তার বিয়ে হয়। মনিবাবুর ওরষে ২ ছেলে ও ২ মেয়ে জন্মগ্রহন করে। এরমধ্যে ২০০৫ সালে আসামি অর্চনা রানীর সাথে মনিবাবুর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। ২০০৭ সালে অর্চনা এক মেয়ে ও একছেলে সহ তার স্বামীকে রেখে মণিবাবুর কাছে চলে আসে। পরে মণিবাবু অর্চনাকে রক্ষিা হিসেবে আশ্রয় দেয়। এরমাঝে অর্চনা মণিবাবুর সম্পত্তি লিখে নিতে নানা ধরণের চাপ প্রয়োগ করে। সাথে অর্চনার ছেলেও এ ষড়যন্তে যোগ দেয়। কিন্তু মণিবাবু তারজমি লিখে দেবেনা বলে জানিয়ে দেয়। এতে অর্চনা ও তার ছেলে আরো ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। পরে এলাকার সন্ত্রাসী হিসেবে পরিচিত অন্যআসামিরাদের সাথে আতাত করে। সর্বশেষ গত ২০ মে ঘূর্ণিঝড় আম্বানের রাতে ১১ টারপর আসামিরা একত্রিত হয়ে মণিবাবুর বাড়িতে আসে। পরে মনিবাবুকে জমি লিখে দিতে ভয়ভীতি দেখাতে থাকে। একপর্যায় মনিবাবু রাজি না হওয়ায় আসামিরা খাট থেকে নিচে ফেলিয়ে দেয়।পরে অর্চনা মণিবাবুর হাত ধরে রাখে, অর্চনার ছেলে মনির বুকের উপর উঠে চেপে ধরে। মনির চিৎকারে বাদী সহ আশপাশের লোকজন ছুটে আসে। এসময় তারা দেখতে পায় ও অন্যরা মনির গলায় গামছা পেচিয়ে শ্বাসরোধ করে পালিয়ে যায়।

উল্লেখ্য, এঘটনায় এরআগে অর্চনা বাদী হয়ে মালতি বিশ্বাসের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেন।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *