সমাজের আলো : কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ফাতেমা বেওয়া (৫২) নামে বৃদ্ধার মরদেহ নেয়নি স্বজনরা। এমনকি এমনকি হাসপাতালে দেওয়া মোবাইল নম্বরে একাধিক বার ফোন করেও তা বন্ধ পাওয়া যায়। লাশ নেয়নি স্বজনরা, দাফন করল ছাত্রলীগ মমিনুল ইসলাম মঞ্জু ২ মিনিটে পড়ুন এ অবস্থায় ফুলবাড়ী উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান নিজেও কথা বলেন স্বজনদের সঙ্গে। এরপরও মরদেহ নিতে রাজি করাতে পারেননি তিনি। শেষ পর্যন্ত মেহেদী হাসান ছাত্রলীগের সদস্যদের নিয়ে স্থানীয় মানুষদের সহযোগিতায় বৃদ্ধার লাশ শনিবার (১৭ জুলাই) রাত ১১টার দিকে ফুলবাড়ী কবরস্থানে দাফন করেন। এর আগে, রাত ১০টার দিকে উপজেলা হাসপাতাল চত্বরে অবস্থিত মসজিদের সামনে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলায় অন্তর্ভুক্ত বিলুপ্ত ছিটমহল দাশিয়ারছড়ার সমন্বয় পাড়া এলাকার মৃত বানু মামুদের কন্যা ফাতেমা বেওয়া (৫২)। তার বিয়ে হয়েছিল পার্শ্ববর্তী লালমনিরহাট জেলায় বড়বাড়ী এলাকায়। এক বছর আগে স্বামী আজাহার আলী মারা যান। এদিকে, তাদের এক ছেলে ও এক মেয়ের বিয়ে হয়ে গেলে তারা গার্মেন্টসে কাজ করায় ঢাকায় চলে যান। বাধ্য হয়ে ফাতেমা বেওয়া ভাইদের বাড়িতে চলে আসেন। তার তিন ভাইয়ের মধ্যে ইনসান আলী ভ্যানচালক, দানেশ আলী হোটেল শ্রমিক ও ইউনুছ আলী দিনমজুর। এ অবস্থায় ফাতেমা বেওয়া অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে ফুলবাড়ী উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তারপর থেকে কেউ তার খোঁজখবর নেয়নি। শনিবার বিকেলে হাসপাতালেই তার মৃত্যু হয়।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *