সমাজের আলো: শিখা মনি। গাজীপুর জেলার শ্রীপুর থানার পাটপঁচা এলাকার ইপসা গেটের একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। স্বামী দুবাইয়ে প্রবাসী এবং নিঃসন্তান হওয়ায় এখানে একাই থাকতেন শিখা। ২০১৮ সালের ২৮ নভেম্বর বিকেল সাড়ে চারটার দিকে কাউকে কিছু না বলে বাড়ি থেকে বের হন তিনি। শিখার বাড়ির মালিক মোস্তফা বলেন, ‘আগে শিখা ছিল মতি চাচার বাসায়। পরে আমি ওখান থেকে শিখার মায়ের মোবাইল নাম্বার জোগাড় করে আমি তার মাকে ফোন দিয়ে জানাই যে মেয়েটা কোথায় গেছে। তখন মেয়েটার মা বলে, পাশের বাসার কয়েকজনের সাথে শিখার ভালো সম্পর্ক আছে আপনি তাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। তখন আমি তাদের কাছে গেলে তারা বলে, মেয়েটা ঢাকা গেছে।’ শিখা নিরুদ্দেশ হওয়ার ২১ দিন পর তার মা সুফিয়া বেগম গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। জিডিতে শিখার নিরুদ্দেশ হওয়ার জন্য কাউকে সন্দেহ করেননি তিনি। সাধারণ ডায়েরিতে শিখার শারীরিক বর্ণনা দেন এরকম: বয়স আনুমানিক ২২ বছর। গায়ের রং শ্যামলা। উচ্চতা ৫ ফুট ৩ ইঞ্চি। নিরুদ্দেশ হওয়ার সময় পরনে ছিল সালোয়ার-কামিজ। শিখার পরিবারের কাছে প্রশ্ন ছিল, থানা পুলিশকে জানাতে এত দেরি করলেন কেন তারা? এতদিন লাপাত্তা থাকার পরও কাউকে সন্দেহ হলো না কেন তাদের? শিখার মা সুফিয়া বেগম বলেন, তাদের বিয়ে হয়েছে। তার স্বামী আসছে যাচ্ছে। স্বামী এখানে শিখাকে দিয়ে গেছে তখন ভালো ছিল। এর মধ্যে শিখাকে বাসায় রেখে স্বামী ২/৩ বার বিদেশে গেছে। শিখার বোন আনজুম বলেন, আমার বোন এমনিও এক সপ্তাহ পর পর ফোন দিত। তো আমার মায়ের অসুখ হলে আমরা তাকে ফোন দেই। তখন সে বলে, দেখি আমার হাতে টাকা পয়সা নেই। এদিকে শিখা নিখোঁজ হওয়ার ১৬ দিন পর ২০১৮ সালের ১৩ ডিসেম্বর পোড়াবাড়ি পূর্বপাড়া, কোনাপাড়া এলাকার জাকির হোসেনের পুকুরের উত্তর পূর্ব কোণে কাদার মধ্যে মাথা খানিকটা বের করা অবস্থায় একটি মৃতদেহের সন্ধান পান স্থানীয়রা। তাদের ধারনা জঙ্গলের শেয়াল টেনে বের না করলে নির্জন এই জায়গায় কাউকে পুঁতে রাখার খবর কোনোদিন জানাই যেত না। স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, আমি একদিন দেখি এখানে পাখি কুকুর বসে আছে। পরে আমি গরু রেখে এখানে আস্তে আস্তে এসে দেখি চুল পড়ে আছে। তারপর আমি এখানে থেকে চলে যাই। গাজীপুর সদর থানার পুলিশ এসে মাটি খুঁড়ে মরদেহটি উদ্ধার করে। সুরতহাল রিপোর্ট তৈরিতে সহায়তা করেন নারী কনস্টেবল রুমা আক্তার। সুরতহাল রিপোর্টে মরদেহটি আনুমানিক ৩২ বছর বয়সী একজন নারীর বলে উল্লেখ করা হয়। স্থানীয়রা অনেকেই দেখলেও মৃতদেহটি কার তা শনাক্ত করতে পারেনি কেউ। কেননা মরদেহের পরনে কোনো কাপড় ছিল না। এমনকি পুরো শরীর ছিল চামড়াবিহীন এবং ফোলা।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *