সমাজের আলো : সাতক্ষীরার বহুল আলোচিত টাউট বাদশা সংগঠনের রেজিঃ নিয়ে সরকারি সহযোগিতার পায়তারা করে আসছিল।এক পলাতক সচিব তাকে এ কাজে সহযোগিতার করে আসছিল। বর্তমানে ওই সচিব পালিয়ে রয়েছে।মহা প্রতারক বাদশা ওরফে টাউট বাদশা গোয়েন্দাদের নিকট সঠিক তথ্য দিচেছ না। একাক সময় একাক রকম কথা বলছে ।সাতক্ষীরা গোয়েন্দা পুলিশের ইন্সপেক্টর ইয়াছিন আলম চৌধুরি জানান,বাদশা মিয়াকে তিন দিনের রিমান্ড শেষে বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যায় আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া তার বিরুদ্ধে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের দায়েরকৃত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ও প্রতারণার মামলায় যথাক্রমে ৭ দিন ও ১০ দিনের পৃথক রিমান্ড শুনানীর জন্য রবিবার দিন ধার্য করা হয়েছে।সাতক্ষীরা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইয়াছিন আলম চৌধুরী জানান, পহেলা মে শনিবার ভোরে সাতক্ষীরার বহুল আলোচিত কথিত ডাক্তার শহরের পলাশপোলের বাদশা মিয়াকে বাইপাস সড়ক সংলগ্ন শফিকুল ইসলামের ফাস্ট ফুডের দোকানের পাশ থেকে একটি পিস্তল ও দু’ রাউন্ড গুলিসহ গ্রেপ্তার করা হয়। এ ঘটনায় গোয়েন্দা পুলিশের উপপরিদর্শক মহসিন আলী তরফদার বাদি হয়ে ওই দিনেই সদর থানায় অস্ত্র আইনে মামলা (জিআর-২৯৯/২১ সদর) দায়ের করে তদন্তকারি কর্মকর্তা উপপরিদর্শক আরিফুর রহমান ফারাজি তাকে জিজ্ঞাবাদের জন্য আদালতে সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। পরদিন শুনানী শেষে মুখ্য বিচারিক হাকিম মোঃ হুমায়ুন কবীর তার তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। পরদিন তাকে জেলখানা থেকে তাদের কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয়। রিমান্ড শুনানী শেষে তাকে বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যায় আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়। জিজ্ঞাসাবাদে সে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *