রবিউল ইসলামঃ সাতক্ষীরার শ্যামনগরে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ৪৫ বছর বয়সী নারী কর্তৃক আত্মহত্যার হুমকি দিয়ে যুবলীগ নেতাসহ এক সাবেক ইউপি মেম্বরের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যতন দমন আইনে মামলা মিথ্যে মামলা দায়েরের অভিযোগ উঠেছে। সোমবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে শ্যামনগর উপজেলার সোনাখালী গ্রামের মোঃ সোহরাব হোসেনের স্ত্রী মোছাঃ তহমিনা বেগম এই অভিযোগ করেন। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আমার স্বামী সোহরাব হোসেন শ্যামনগর উপজেলার রমজাননগর ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সভাপতি ও ২নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বর। তারানীপুর গ্রামের মৃত শওকত হোসেন মোল্যা ২০০১ সালে ভৈরবনগর মৌজায় ১ নং খতিয়ানের ১নং দাগে ১.৫০ একর জমি ৪৫১/১৯৯০-৯১ নং মামলা বন্দোবস্ত প্রাপ্ত হন। শওকত হোসেনের মৃত্যুর পর ওই জমির মালিক হন তার ছেলে রফিকুল ইসলামসহ অন্যান্য ভাইয়েরা। ২০১১ সালে উক্ত সম্পত্তি ইজারা নিয়ে আমার স্বামী সোহরাব হোসেন ও নুর ইসলাম যৌথভাবে মাছের ঘের করে আসছিলেন। গত ২০১৭ সালে ভৈরবনগর গ্রামের রেজাউল তরফদারের স্ত্রী হাসিনা বেগম উক্ত জমির পাশে ১২০৩ নং রেজিঃ দলিল সম্পদানে বন্দোবস্ত প্রাপ্ত হন। তার জমি দখেলে থাকার পরও আমার স্বামীর দখলীয় মাছের ঘের জোরপূর্বক দখলের জন্য পায়তারা করতে থাকে তারা। একপর্যায় সাতক্ষীরা অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১৪৫ ধারায় আমার স্বামী সোহরাব হোসেনরে বিরুদ্ধে পিটিশন-২৯৭/১৯ মামলা দায়ের করে। এছাড়া ওই হাসিনা বেগমের মা’ মনোয়ারা বেগম আমার স্বাসীসহ অন্যদের বিরুদ্ধে মাছের ঘের লুটের মিথ্যা অভিযোগে নালিশি আদালতে সিআর ২৯৪/১৯ নং মিথ্যে মামলা দায়ের করে। যার বিচার কার্যক্রম চলমান। এরপরও আমার স্বামী সোহরাব হোসেন ও তার পার্টনার নুর ইসলাম পুনরায় নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে গত ১১ নভেম্বর সম্পাদিত লীজ নেওয়া সম্পত্তির বেড়িবাঁধ সংষ্কার করলে তাদের বিরুদ্ধে আত্মহত্যার হুমকি দিয়ে শ্যামনগর থানায় ধর্ষনের চেষ্টার মামলা দাখিল করে। তহমিনা বেগম অভিযোগ করে বলেন, পরসম্পদ লোভী হাসিনা বেগম এতেও ক্ষ্যান্ত না হয়ে একটি পরিকল্পিত নাটক সাজিয়ে আমার স্বামী সোহরাব হোসেন ও তার পার্টনার নুর ইসলামের বিরুদ্ধে গত ১৯ ডিসেম্বর ধর্ষন চেষ্টা মামলা দায়েরের চেষ্টা করে। কিন্তু মিথ্যে মামলা রেকর্ড করতে না পেরে হাসিনা বেগম আত্মহত্যার হুমকি দেয়। এরপর ওই ঘটনায় ২২ ডিসেম্বর শ্যামনগর থানায় নারী ও শিশু নির্যতন দমন আইনে মামলা রেকর্ড করা হয়। তিনি আরো বলেন, জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে আমার স্বামী ও তার পার্টনারকে সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন করতে হাসিনা বেগম মিথ্যে নাটক সাজিয়েছেন। মিথ্যে এই মামলার দায় মাথায় নিয়ে আমার স্বামী ও তার পার্টনার বর্তমানে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। তিনি নিরপেক্ষ তদন্তপূর্বক মিথ্যে মামলার দায় থেকে তার স্বামী ও তার পার্টনারকে অব্যহতি প্রদান এবং হাসিনার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *