মোঃ আবুল কাশেম সরদার:  করোনা থেকে শিক্ষা নিয়ে আমাদের সুন্দর জীবন যাপনের সিদ্ধান্ত নিতে হবে। করোনায় কাঁপছে সারা বিশ্ব। প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। এমন পরিস্থিতিতে স্থবির পুরো বিশ্ব। শহরের পর শহরে চলছে লকডাউন। তবে করোনা বহু মানুষের প্রাণ কেড়ে নেওয়ার পাশাপাশি প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে নানা ‘শিক্ষা’ দিচ্ছে। সে শিক্ষা নিয়ে জীবনের পথে চলতে হবে। বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাস জীবনমান, অর্থনীতি, রাজনীতি, সামাজিকতায় ব্যাপক পরিবর্তন এনে দিয়েছে। এই পরিবর্তন কত দিন পর্যন্ত স্থায়ী হবে তা এখনও বলা যাচ্ছে না। তবে যত দিন বিশ্বজুড়ে করোনা ভ্যাকসিন সহজলভ্য না হবে ততদিন পর্যন্ত করোনা সতর্কতা সকলকে মেনে চলতে হবে। নতুবা জীবনের ঝুঁকি থাকবে। করোনা থেকে আমাদের শিক্ষা ও করণীয় :
মহান সৃষ্টিকর্তাই সর্বশক্তিমান- করোনা থেকে আমাদের প্রথম শিক্ষা। বিশ্বের সবশক্তিই আজ করোনার নিকট অসহায়। রাষ্ট্র পরিচালনায় স্বাস্থ্যখাতকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হবে।স্বাস্থ্য খাতে বাজেটর পরিমাণ বাড়াতে হবে। আগামী বছরগুলোতে বিশ্বব্যাপী খাদ্য সঙ্কট দেখা দিতে পারে। খাদ্য ও কৃষি পণ্য উৎপাদনে তাই বাংলাদেশকে বিশেষ মনোযোগ দিতে হবে। কর্মহীন দক্ষ ও অদক্ষ জনগোষ্ঠীকে দেশে ও বিদেশে নতুন করে চাকরির ব্যবস্থার পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে। করোনা পরবর্তী সময়ে বিদেশে চাহিদা থাকবে কম। তাই বিদেশে অদক্ষ ও দক্ষ শ্রমিক প্রেরণে বহু ধরনের চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হতে হবে। তবে এখন থেকে কূটনৈতিক তৎপরতা খুব বেশি করে শুরু করা দরকার। অন্তত যে সকল প্রবাসী পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে রয়েছেন, তাদের যে কোন উপায় ঐ সকল দেশে নতুন বা পুরাতন কর্মে নিয়োগ অব্যাহত রাখার জন্য বাংলাদেশ সরকারকে বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। দক্ষ জনশক্তি তৈরি করতে হবে।
করোনা ভ্যাকসিন আবিষ্কার না হওয়া পর্যন্ত এই রোগে সারা বিশ্ব দীর্ঘমেয়াদী সমস্যায় থাকবে। আমাদের দেশের অবস্থাও তাই হবে। দেশের অর্থনীতিকে পূর্বের অবস্থায় ফিরিয়ে আনার জন্য দীর্ঘমেয়াদী ও স্বল্প মেয়াদী দু’ধরনের পরিকল্পনা সরকারকে গ্রহণ করতে হবে। বিশেষ করে সেবা খাতের ওপরও গুরুত্ব দিতে হবে। বেসরকারি চিকিৎসা খাত, শিক্ষা খাতকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে বাজেটে সহযোগিতার সুযোগ রাখতে হবে।
মনে করিয়ে দেয়া যেতে পারে, কঠিন সময়ের পরেই আসে সুন্দর সময়। জীবন একটা চক্রের মতো। এটি আপন মনে ঘুরবে। করোনা এই দুঃসময়টি হলো ওই চক্রের একটি পর্ব। আতঙ্কিত হওয়ার দরকার নেই; এই পর্বও চলে যাবে।
লেখক : মোঃ আবুল কাশেম সরদার, সহকারী শিক্ষক,হাজরাকাটী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, তালা,সাতক্ষীরা।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *