আলতাফ হোসেন লালটু সিডনি প্রবাসী : সাহেব কথাটা এক সময় কলারোয়া মানুষের কাছে বহুল প্রচলিত ছিল । আমার লেখার যে আবেদন তা বি এম নজরুল ইসলাম( সাবেক চেয়ারম্যান,উপজেলা চেয়ারম্যান,এম পি ,আওয়ামী লীগের দুঃসময়ের কান্ডারী ও একজন সমাজ পতি) সাহেব কে নিয়ে দু চার কথা । হ্যাঁ সমাজে স্ব ঘোষিত সাহেব দের কথা বলার ধৃষ্টতা আমার নেই সে ভার হয়তো পরবর্তী প্রজন্মের কাঁধে রেখে গেলাম । নজরুল ভাই তদানীন্তন সাতক্ষীরা জেলার মধ্যে হাতে গোনা মাত্র কয়েক টা ধনী পরিবারের মধ্যে একজন ।কলারোয়া থানার জনাব মরহুম রাজাউল্লাহ বিশ্বাস তত্কালীন সময়ে সবচেয়ে ধনাঢ্য ব্যক্তি ছিলেন । তিনি সফল ব্যবসায়ী হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেন । উনার কলারোয়া বাজারে প্রচুর সম্পদ ও কয়েকটি বাড়ি ও প্রতিষ্ঠান আর জমি ছিল । পরিবারের জৈষ্ঠ পুত্র জনাব বি এম নজরুল ইসলাম । পূর্ব পাকিস্তান আমলে প্রাইভেট কার সাতক্ষীরা তে হাতে গোনা দু একটি তার মধ্যে কলারোয়া র বি এম নজরুল ইসলাম সাহেব এর একটি ছিল ।অত্যন্ত সৌখিন আর অসম্ভব উদার মনের জন্য সবাই তাঁকে সাহেব উপাধি তে ডাকতে পছন্দ করতেন ।পাকিস্তান আমলে নজরুল ভাই যুবকদের আইকন ছিলেন । তত্কালীন সময়ে মাঝে মাঝে কলারোয়া থেকে খুলনা তে যেয়ে নাস্তা বা লান্স ও ডিনার করতেন ।যে রাস্তা দিয়ে উনি হেটে যেতেন মানুষ শুধু তাকিয়ে দেখতে পছন্দ করতেন ।তাঁর হাটার ভঙ্গিতে যে ছন্দ ছিল বহু মানুষ তা রপ্ত করতে চেষ্টা করতো ।দান খয়রাত কলারোয়া তে তার জুড়ি মেলা তত্কালীন সময়ে বিরল ছিল । অসম্ভব ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন একজন সত্য ও ন্যায়পরায়ন ব্যক্তি হিসেবে কলারোয়া র মাটি তে তার মতো আর কেউ আসবে বলে আমার মনে হয় না । জীবনে কাউকে দানের ক্ষেত্রে টাকা গুনে দেওয়ার রেওয়াজ তার ছিল না । সমস্ত শ্রেনী ও রাজনৈতিক অঙ্গন তার ব্যক্তিত্বের কাছে মাথা নত করে চলেছে বহুদিন । একজন ক্রীড়াবিদ হিসেবে তিনি সফল ছিলেন ।তিনি ( নজরুল একাদশ ) নামে নিজস্ব টিম তৈরি করে কলারোয়া তথা বহু যায়গা তে খ্যতি অর্জন করেছেন ।নিজেও ফুটবল খেলোয়াড় ছিলেন তবে ব্যাডমিন্টন খেলা তে নজরুল ভাই অত্যন্ত মেধাবী ছিলেন । এমনি একজন নজরুল সাহেব পাকিস্তান আমলে ছাত্র লীগের রাজনীতি তে হাতে খড়ি।এবং তখন থেকেই কলারোয়া আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হিসেবে তিন যুগ আওয়ামী কান্ডারী ছিলেন । মুক্তিযুদ্ধের যে কজন সংগঠক তিনি ও অন্যতম একজন। পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর পর নজরুল ভাই অত্যন্ত সাহসিকতার সাথে কলারোয়া র মাটি তে দলকে সংগঠিত করে বাচিয়ে রাখতে সক্ষম হয়েছিলেন ।তাঁর সাথে জুটি বেঁধে এম এ ফারুক, (অধ্যাপক)মোসলেম উদ্দিন (কমান্ডার) কাজী আশরাফ (সোনা) এবং ডাঃ আবুল হাসনাত ভাইয়েরা কলারোয়া কে আওয়ামী লীগের পরিছন্ন দূর্গে পরিনত করেছিলেন । সেই সব সোনালী দিনের আমরা স্বাক্ষী যাদের পিছনে রাজনীতি করে ক্লান্তি আমাদের স্পর্শ করেনি কখনো। আমরা গর্ববোধ করি নজরুল ভাইদের রেখে যাওয়া সেই সব আলোকিত পথে চলে যতটুকু পেয়েছি তাতেই ধন্য । এহেন একজন বি এম নজরুল ইসলাম সাহেব আমাদের কান্ডারী ছিলেন তাকে স্বশ্রদ্ধ ছালাম ও স্যলুট। ভালো থাকবেন নজরুল ভাই ।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *