সমাজের আলো : হেলেনা জাহাঙ্গীর। আলোচিত এক নাম। সম্প্রতি বাংলাদেশ আওয়ামী চাকরিজীবী লীগ নামে একটি নাম সর্বস্ব সংগঠনের ব্যানারে প্রতারণার অভিযোগ ওঠে তার বিরুদ্ধে। এনিয়ে হইচই শুরু হয় সর্বত্র। বহিষ্কার করা হয় আওয়ামী লীগ থেকে। এরপরই একের পর এক বেরিয়ে আসতে থাকে তার নানা অপকর্মের কাহিনী। ধূর্ত প্রকৃতির হেলেনা জাহাঙ্গীর যখন যে সরকার ক্ষমতায় এসেছে নানা ছুতোয় সরকারের উচ্চ পর্যায়ের লোকদের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা আদায় করেছেন। গত বৃহস্পতিবার রাতে র‌্যাব অভিযান চালায় তার বাসায়। সেখান থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। অভিযানে তার বাসা থেকে বিভিন্ন নথিপত্র উদ্ধার করেছে র‌্যাব। সেখানে ১৪টি প্রতিষ্ঠানের প্যাড পাওয়া গেছে। প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে, হেলেনা ফাউন্ডেশন, হেলেনা শিশু কল্যাণ সংঘ, হেলেনা সেবা সংঘ, হেলেনা আলোর দিশারী ফুটবল ক্লাব, হেলেনা সারগাম একাডেমি, হেলেনা চক্ষু হাসপাতাল ও জয়যাত্রা অনলাইন নিউজ পোর্টাল ডটকমসহ আরও একাধিক প্রতিষ্ঠানের প্যাড। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে র‌্যাব তার কাছে জানতে চেয়েছিল ওই প্রতিষ্ঠানের কার্যালয়গুলো কোথায়? তিনি তার কোনো উত্তর দিতে পারেননি। ওই প্রতিষ্ঠানগুলোর নাম ভাঙিয়ে তিনি সচিবালয়ের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে বিভিন্ন কাজের তদবির করে আর্থিক সুবিধা নিতেন। সূত্র জানায়, হেলেনার সচিবালয় ও গণপূর্ত অধিদপ্তরে যাতায়াত ছিল অবাধে। সচিবালয়ে যাতায়াত করতে পাস পাওয়ার ব্যাপারে কোনো অসুবিধা হতো না। বিশেষ করে গণপূর্ত অধিদপ্তরের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে তার বিশেষ সম্পর্ক ছিল। ওদিকে গতকাল বিকালে হেলেনা জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে গুলশান থানায় ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে মামলা করেছে র‌্যাব। ডিজিটাল প্ল্যাটফরম ব্যবহার করে মিথ্যাচার, অপপ্রচার ও বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়িয়ে রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ সংস্থা ও ব্যক্তিবর্গের সম্মানহানি করার অপচেষ্টার অভিযোগ আনা হয়েছে এ মামলায়।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *