শেখ সিরাজুল ইসলাম : ঘূর্ণিঝড় প্রবণ দেশের উপকূলীয় এলাকা সাতক্ষীরায় নিজ উদ্যোগে (৪০) হাজার তাল-গাছের বীজ রোপণ করে এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপনের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন বৃক্ষপ্রেমী মোঃ কোহনিুর ইসলাম শেখ (৪৮)।
সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলার আঠারই গ্রামরে মৃত আয়জুদ্দীন শেখের ছেলে কোহিনুর ইসলাম শেখ ১২ বছর বয়স থেকে শুরু করে ব্যক্তিগত সামাজিক দায়বদ্ধতামূলক কাজের অংশ হিসাবে এই মহতী উদ্যোগ গ্রহণ করেন। কোহিনুর ইসলাম শেখ জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি মোকাবেলার আগাম প্রস্তুতি গ্রহণ, প্রকৃতির সৌর্ন্দয বর্ধন, পরিবেশেরে ভারসাম্য রক্ষা এবং সবুজ বাংলাদশে গড়তে আজীবন মেয়াদি নিজ এলাকায় প্রথমে বাবলা এবং খৈ গাছের হাজার হাজার চারা রোপণ করেন। গত ৫-৭ বছর ধরে উপজেলার আগোলঝাড়ার ঝুঁড়িঝাড়া মাঠের পাশ দিয়ে তালা ব্রিজ সংলগ্ন এলাকায়, তালার ঝাউতলা মাদ্রাসা থেকে খেজুর বুনিয়া বাজার পর্যন্ত, ইসলামকাটি সরকারি পুকুর পাড়, তালার গোপালপুর খোলা জানালা (ইকোপার্ক) সহ রাস্তার বিভিন্ন জনগুরুত্বর্পূণ স্থানে ৫ কিলোমিটার রাস্তায় তিনি তাল গাছ রোপণ করেছেন। বৃক্ষরোপণ তার নেশা হয়ে দাঁড়িয়েছে। ইতিমধ্যে সে নিজের অর্থায়নে সাতক্ষীরা-খুলনা মহা-সড়কের শুভাশুনি বাজার হতে বিনেরপোতা ব্রিজ পর্যন্ত রাস্তার দুই পাশে ১৫ কিলোমিটার তালের আঁটি (বীজ) রোপণ করেছেন, যে গাছগুলোর এখন সুদৃশ্যমান। এভাবে তিনি বিভিন্ন জনগুরুত্বর্পূণ এলাকায় (৪০) হাজারের বেশি তাল গাছের বীজ রোপণ করেছেন। মোঃ কোহনিুর ইসলাম শেখ দরিদ্র পরিবারের সন্তান, তিনি তার সংসার চালানোর পাশাপাশি নিজের উপার্জনের কিছু জমানো টাকা দিয়ে সর্ম্পূণ ব্যক্তিগত উদ্যোগে চালাচ্ছেন এই নীরব বিপ্লব। পরিবারের নানা অভাব অনাটনেও তার এ বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি কখনো থেমে যায়নি। অনেকেই মনে করেন তার এই সবুজ বিপ্লবের জন্য তিনি সাতক্ষীরা জেলার ইতিহাসের সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বৃক্ষপ্রমেী হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন। আবার কেউ কেউ তাকে বৃক্ষ পাগল, বৃক্ষবন্ধু, পরিবেশ যোদ্ধা, সাদা মনের মানুষ হিসাবেও ডাকেন। বৈশ্বিক তাপমাত্রা জলবায়ু পরিবর্তন ইত্যাদি ক্ষতির ব্যাপকতা রোধ করে আগামী প্রজন্মকে বসবাসের উপযুক্ত পরবিশে এবং সবুজ বাংলাদশে গড়ে তুলতে মোঃ কোহনিুর ইসলাম এই বৃক্ষ বিপ্লব চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি তার এই সামাজিক বনায়ন কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে দেশের উপকূলীয় অঞ্চলে সবুজ বাংলাদেশ গড়ার জন্য এক উজ্জল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছেন।
মোঃ কোহনিুর ইসলাম জানান, (১২) বছর বয়স থেকে তিনি বিভিন্ন জনগুরুত্বপূর্ণ স্থানে বৃক্ষরোপণ করে আসছেন। এই কার্যক্রম করে তিনি অসংখ্য মানুষের ভালোবাসা পেয়েছেন যা তাকে উৎসাহিত ও অনুপ্রাণিত করেছে। সরকারী ভাবে সার্বিক সহযোগিতা পেলে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ জনগুরুত্বপূর্ণ স্থানে বৃক্ষরোপণের মাধ্যমে সবুজ শ্যামল ও সুন্দর বাংলাদশে উপহার দিতে চান তিনি। তিনি সাতক্ষীরা জেলা থেকে বাংলাদেশকে বিশ্বের সবুজ রোল মডেল হিসাবে তুলে ধরতে জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত বনায়ন কার্যক্রম চালিয়ে যাবেন বলে অভিব্যক্ত প্রকাশ করেন। তিনি এ-বছর তালা ব্রীজ সংলগ্ন এলাকায় থেকে জেঠুয়া বাজার পর্যন্ত তিন কিলোমিটার ও ইসলামকাটি বাউখোলা থেকে বদরমোড় এলাকা পর্যন্ত দুই কিলোমিটার রাস্তার ধারে তালের বীজ রোপণ করবেন। তিনি মৃত্যুর আগ-পর্যন্ত ৫ লক্ষ তাল গাছ রোপণ করার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন।
উপজেলা সামাজিক বন বিভাগ তালা ফরেস্টার মোঃ ইউনুছ আলী জানান, এটি একটি মহতি উদ্যোগ। তিনি আরো বলেন অফিসের পক্ষ থেকে টেকনিক্যাল সাপোর্ট প্রদান করেছেন এবং সার্বিক বিষয়ে সহযোগিতা করা হবে। সামাজিক বন বিভাগের সাতক্ষীরা ফরেস্টার জি এম মারুফ বিল্লাহ জানান, আমারা শুনেছি তালা উপজেলায় এমন একজন লোক নিজ উদ্যোগে গাছ রোপণ করেন। খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কে একদিন তালের বীজ রোপণ করার সময় আমরা গিয়েছিলাম। এটা নিঃসন্দেহে সামাজিক বনায়নের জন্য গুরুত্বর্পূণ ভূমিকা এবং প্রশংসনীয় ভূমিকা রাখবে। দেশের সকলে তাকে অনুসরণ করলে এদেশ একদিন সবুজ দেশে পরিণত হবে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *