সমাজের আলো : সাতক্ষীরার তালার খেশরা ইউনিয়নের শালিখা থেকে খেশরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও বালিয়া বটতলা থেকে বালিয়া খেয়া ঘাট পর্যন্ত সাড়ে তিন কিলো মিটার সড়ক নির্মানে সিমাহিন দুর্নীতি ও অনিয়ম চলছে। সীমাহীন দুর্নীতি ও অনিয়ম ঢাকতে কৌশল অবলম্বন করছেন ঠিকাদার কল্যান বসু। সড়ক নির্মাণে আমা ইট ব্যবহার হচ্ছে ছবিসহ এমন সংবাদ সমাজের আলোতে প্রকাশ হয়। সমাজের আলোতে সংবাদ প্রকাশের পর রাস্তার কাজে ব্যবহৃত সকল আমা ইটের খোয়া ঢাকতে ঠিকাদার কল্যান বসু যে অভিনব কৌশল অবলম্বন করেছেন তা পুরস্কার পাওয়ার যোগ্য। বর্তমানে ঠিকাদার শালিখা হতে খেশরা প্রাইমারি স্কুল পর্যন্ত নির্মাণাধীন রাস্তার নিচের অংশে ব্যবহৃত আমা ইটের খোয়া চাপা দিতে সমস্ত রাস্তায় খোয়ার পরিবর্তে আস্ত ইট ঢেলে বিছিয়ে দিয়েছেন। এবং শ্রমিক দিয়ে রাস্তায় বিছানো ইট হাতুড়ি পেটা করে কোনরকমে দুই তিন খন্ড করে রাখছেন। বিষয়টি সরেজমিনে দেখতে গেলে অনেকেই বলেন এমন আজব ভাবে রাস্তা তৈরি আমরা জীবনে কখনো দেখি নাই। সমস্ত রাস্তায় এভাবে ইট ঢেলে দেয়ার ফলে খেশরা শাহজাদপুর-সহ কয়েকটি গ্রামের মানুষের যাতায়াত একেবারেই বন্ধ হয়ে গেছে। এমনকি পায়ে হেঁটে চলাচল করা যাচ্ছেনা নির্মাণাধীন এই রাস্তাদিয়ে। এভাবে রাস্তায় অস্ত ইট ঢেলে শ্রমিক দিয়ে লোক দেখানো হাতুড়িপেটা করে এর উপর দিয়ে রোলিং করলে কখনোই রাস্তা ভালোভাবে সেটিং হবে না এমন অভিযোগ এলাকাবাসীর। দুইকোটি সাতাশ লাখ টাকার প্যাকেজ বাজেটের এই দুটি সড়ক নির্মানের কাজে ব্যাবহার করা হয়েছে দুই ও তিন নম্বর আমা ইট। কম দেয়া হয়েছে বালির পরিমান। রোলিংও করা হয়নি যথাযথ ভাবে। এই সড়ক সহ একই ইউনিয়নে চার কোটি টাকা ব্যায়ে মোড়ল পাড়া থেকে মিশারডাঙ্গা সড়ক ও বায়ান্ন লাখ টাকা ব্যায়ে দরমুড়াগাছা সড়ক ও সড়কের সাথে চারটি কালভার্ট নির্মান কাজে ব্যাপক অনিয়ম-দূর্নীতির অভিযোগ উঠেছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান বসু ট্রেডার্সের মালিক ঠিকাদার কল্যান বসুর বিরুদ্ধে। প্রভাবশালী এই ঠিকাদার কোন নিয়ম নিতির তোয়াক্কা না করে ইচ্ছামত কাজ করে যাচ্ছে। সিডিউল অনুযায়ী কোনো কাজই করছেননা ঠিকাদার কল্যান বসু। প্রভাবশালী এই ঠিকাদারের ক্ষমতার প্রভাবের কারণে সংশ্লিষ্ট দপ্তর সহ কেউ তার কাজের তদারকিও ঠিকমত করেননা। নতুন রাস্তা নির্মানের জন্য প্রথমে রাস্তার নিচে পুরু একটি বালির স্তর দিতে হবে এরপর খোয়া ও বালি দিয়ে ভালো ভাবে রোলিং করতে হবে। সঠিক বালির স্তর ও কাজে ব্যাবহারিত ইটের খোয়া মান সম্পন্ন সহ সঠিকভাবে রোলিং করা না হলে সড়কের স্থায়িত্ব একেবারেই কমে যায়। বালির স্তর কম নিম্নমানের বালি ও আমা ইটের খোয়া ব্যবহার সহ একেবারে যেনতেন ভাবে রোলিং করায় দ্রুত এই সড়ক নষ্ট হয়ে যাবে এমনটাই দাবি এলাকাবাসীর। কাজ শুরুর থেকে অনিয়মের অভিযোগ ওঠে ওই প্রভাবশালী ঠিকাদারের বিরুদ্ধে। খেশরার এই সড়ক নির্মানের বিষয়ে এলাকাবসির অভিযোগ যেনতেন কাজ করে বিল উত্তোলনের চেষ্টা করছেন ঠিকাদার। ঠিকাদার কল্যান বাবুর সব কাজই বাস্তবায়ন হয়ে থাকে খুবই খারাপ ইট দিয়ে। নির্মান ব্যায়ের নির্ধারিত টাকার অর্ধেক দিয়েই তিনি তার বেশিরভাগ কাজ সম্পর্ন করেন এমনও অভিযোগ এই ঠিকাদারের বিরুদ্ধে। বাকি অর্ধেক টাকা থেকে একটি বড় অংশ বিলিয়ে দেন বিভিন্ন মহলের মুখ বন্ধ রাখার জন্য। এ বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে সরকারের কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন এই সড়ক দ্রুত নষ্ট হয়ে যাবে এমনটাই দাবি এলাকাবাসীর।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *