যশোর প্রতিনিধি  : যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ফারজানা নাসরিন ন্যায়বিচার পেতে সংশয় প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। গতকাল সোমবার দুপুরে যশোর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এসে তিনি বিচারকাজে পক্ষপাত হতে পারে বলে আশঙ্কা করেন। তার স্বামী মো. মাসুদ রানা একজন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হওয়ায় তার এমন আশঙ্কা বলে জানান। সহকারী অধ্যাপক ফারজানা নাসরিন তার লিখিত বক্তব্যে জানান, চলতি বছরের ১৪ ফ্রেব্রুয়ারি জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. মাসুদ রানার সঙ্গে তার বিয়ে হয়। সংসার চলাকালে তার স্বামী ঢাকায় প্লট কেনার জন্যে দশ লাখ টাকা দাবি করেন। এবং এ নিয়ে তাকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন শুরু করেন। একপর্যায়ে মো. মাসুদ রানাকে পাঁচ লাখ টাকা দেন তার বাবা। কিছুদিন চুপ থাকলেও আরো পাঁচ লাখ টাকার জন্যে তিনি ফের শারীরিকভাবে নির্যাতন শুরু করেন। উপায়ন্তর না পেয়ে তিনি যশোরে তার বাবার বাড়ি ফিরে আসেন এবং গত ১৪ সেপ্টেম্বর যশোরের আমলী আদালতে (সদর) যৌতুক আইনে মামলা (সিআর-১১৪৯/২০২০, ১৪.০৯.২০২০) করেন। তিনি বলেন, ‘মামলার পর গত ১৮ সেপ্টেম্বর মাসুদ রানা, তার বোন রানী ও বোনাই জিয়াউর রহমানকে সঙ্গে নিয়ে আসেন আপসের কথা বলে। কিন্তু তারা এসে ফের আমাকে যৌতুকের দাবিতে মারধর করেন। পরবর্তীতে আমি যশোরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে একটি পিটিশন (নম্বর-৪৫/২২.০৯.২০২০) দাখিল করি।’ তিনি বলেন, ইতোমধ্যে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ যশোরের ৪৫/২০২০ নম্বর পিটিশন মামলার বিচার বিভাগীয় অনুসন্ধানে মাসুদ রানার বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা মিলেছে। কিন্তু বিচারক ১১ নভেম্বর তারিখে আদেশ প্রদান না করে বাদীকে (ফারজানা নাসরিন) ব্যক্তিগত আক্রমণ এবং কারণ দর্শানোর নোটিস দেন। তিনি আশঙ্কা করেন, মাসুদ রানা জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হওয়ায় সুবিচার প্রক্রিয়া নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছে। এ অবস্থায় সুষ্ঠু বিচার যাতে পেতে পারেন, সেজন্য তিনি প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামনা করেন। সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. ইকবাল কবির জাহিদ, সাধারণ সম্পাদক ড. মো. আমজাদ হোসাইনসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন। তারাও শিক্ষক ফারজানা নাসরিনের ন্যায়বিচার প্রত্যাশা করেন। যশোর অফিস সাংবাদিক ইউনিয়ন যশোর তার কার্যনির্বাহী কমিটির নির্বাচন প্রক্রিয়া শুরু করেছে। গতকাল সোমবার অনুষ্ঠিত নির্বাহী কমিটির সভায় প্রাকনির্বাচনী কার্যক্রম এগিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ন সিদ্ধান্ত হয়েছে। সেই অনুযায়ী সংগঠনের সব ইউনিট দ্রুত পুনর্গঠন করা হবে। এই কাজে প্রধান দায়িত্ব পালন করবেন সাংবাদিক ইউনিয়ন যশোরের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। নির্বাচন ও সাধারণ সভা সুষ্ঠুভাবে সম্পাদন এবং গঠনতান্ত্রিক বিধিবিধান পরিপালনের জন্য সদস্যদেরকে আগামী ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে মাসিক বকেয়া চাঁদা পরিশোধ করতে হবে। কোষাধ্যক্ষ অথবা দপ্তর সম্পাদকের কাছে চাঁদা পরিশোধ করা যাবে। সভায় সংগঠনকে আরো গতিশীল করতে নতুন সদস্য সংগ্রহ কার্যক্রম শুরুর সিদ্ধান্ত হয়। ফি পরিশোধসাপেক্ষে সদস্যপদের জন্য আবেদন করা যাবে। দপ্তর সম্পাদকের কাছ থেকে নির্ধারিত ফরম সংগ্রহ করতে পারবেন আগ্রহীরা। এছাড়া সম্ভাব্য স্বল্পতম সময়ের মধ্যে কল্যাণ তহবিল গঠনের কাজ শেষ করা হবে। এর জন্য প্রস্তাবিত নীতিমালা চলতি সপ্তাহের মধ্যে চূড়ান্ত করে নির্বাহী কমিটির অনুমোদনের জন্য পেশ করবেন কার্যনির্বাহী কমিটির একমাত্র সদস্য সাইফুর রহমান সাইফ। গতকাল সোমবার দুপুরে সংগঠনের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন সভাপতি শহিদ জয়। অন্যদের মধ্যে সহসভাপতি মুর্শিদুল আজিম হিরু, সাধারণ সম্পাদক আকরামুজ্জামান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এস এম ফরহাদ কোষাধ্যক্ষ গালিব হাসান পিল্টু, দপ্তর সম্পাদক ইকতিয়ার রহমান ইমন, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক মীর কামরুজ্জামান মনি এবং কার্যনির্বাহী সদস্য সাইফুর রহমান সাইফ সভায় উপস্থিত ছিলেন।





Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *