সমাজের আলো: জাতীয় হেল্প লাইন ৯৯৯ এ কল দিয়ে স্বামী, শ্বশুর শাশুড়িসহ লোকজনের শারিরীক নির্যাতনের হাত থেকে এক গৃহবধূকে উদ্বার করেছে শ্যামনগর থানা পুলিশ। গত ১৯ জানুয়ারি রাতে ওই গৃহবধূকে নির্যাতনের পর ঘরের মধ্যে তালাবদ্ধ করে রাখে তার স্বামীসহ শ্বশুর বাড়ির লোকজন। এ ঘটনায় আশেপাশের লোকজন গৃহবধূর পিত্রালয়ে খবর দিলে তাৎক্ষণিক নির্যাতিতা গৃহবধূর ছোট বোন শাহানারা জাতীয় হেল্প লাইন ৯৯৯ এ কল দিয়ে সাহায্য চাইলে শ্যামনগর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ঐ গৃহবধূকে উদ্বার করে শ্যামনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠায়। এ ঘটনায় ভুক্তোভোগী নির্যাতিতা গৃহবধূ বাদী হয়ে শ্যামনগর থানায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়েরের প্রস্তুতি চলছিল বলে জানা যায়। নির্যাতিতা গৃহবধূ কাশিমাড়ীর গাঙআটি গ্রামের আব্দুল করিম শেখের কন্যা কোহিনূর খাতুন জানান, ১৮ বছর পূর্বে একই ইউনিয়নের ঘোলা গ্রামের আইজদ্দী গাজীর ছেলে রাশেদ গাজীর সাথে দেড় লক্ষ টাকা দেনমোহর ধার্যে ইসলামী শরীয়ত মোতাবেক তার বিয়ে হয়। বিয়ের সময় তার সুখের কথা চিন্তা করে নগদ একলক্ষ টাকা সহ আরও পঞ্চাশ হাজার টাকার আসবাবপত্র সামগ্রী ও বিভিন্ন উপঢৌকন জামাই রাশেদ গাজীকে দেয় তার পরিবার। বিবাহিত জীবনে তাদের সংসারে ১৫বছর বয়সী রিয়ামনি ও ৬ বছর বয়সী রাকিবুল হাসান নামের দুটি সন্তানও রয়েছে। কোহিনূর খাতুন আরও জানান, বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন অজুহাতে আমার শ্বশুর শাশুড়িসহ আমার স্বামী বিভিন্ন জিনিসপত্র ও নগদ টাকা আনতে বলে আমার বাবার বাড়ি থেকে। প্রায় সময় বিভিন্ন জিনিসপত্র ও নগদ টাকা চেয়ে আমাকে শারিরীক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করত। আমার শ্বশুর, শাশুড়ি ও। তাদের পরিবারের লোকদের ইন্ধনে পাকা ঘর তৈরির জন্য দুই লক্ষ টাকা দাবী করে। আমার সুখের কথা চিন্তা করে আমার বাবা ও ভাই আমার স্বামীকে নগদ দুই লক্ষ টাকা দেয়। পূণরায় আমার স্বামী ট্রলি গাড়ী কেনার জন্য নগদে এক লক্ষ দশ হাজার টাকা দাবী করে আমাকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে আসতে থাকায় আমার বাবা ও ভাই তাও পূরণ করে দেয়। এরপরও আমার স্বামী রাশেদ গাজী, শ্বশুর আইজদ্দী গাজীসহ শ্বশুরবাড়ির খোকন গাজীর ছেলে আল আমিন বাবু, আমার দেবর/ভাসুর শফিকুল গাজী, শহিদ আলী গাজী, রাজগুল গাজী ও নসীম আকন্দির ছেলে মোশাররফ হোসেন গংরা ক্ষান্ত না হয়ে পুনরায় আমার নিকট যৌতুক দাবী করে শারিরীক ও মানসিক নির্যাতন করতে থাকে। ওদের দাবীকৃত যৌতুকের টাকা না দিলে ১নং আসামি অর্থাৎ আমার স্বামী অন্যত্র বিয়ে করে যৌতুকের টাকা নিবে বলে আমার উপর চাপ সৃষ্টি করতে থাকে। আমি আমার শিশু সন্তানদের কথা চিন্তা করে আসামীদের সকল কষ্ট যন্ত্রণা নিরবে সহ্য করে আসতে থাকি। এমতাবস্থায় গত ১৯ জানুয়ারি রাতে ১নং আসামী তার বসত ঘরের মধ্যে অন্যান্য আসামিদের কু পরামর্শে ও ইন্ধনে আমার নিকট দুই লক্ষ টাকা যৌতুক দাবী করে আমার বাবার বাড়ি থেকে নিয়ে আসার কথা বলে। আমার বাবার বাড়ির আর্থিক অবস্থার কথা চিন্তা করে আমি টাকা আনার অপরাগতা প্রকাশ করাই ০১ নং আসামী অর্থাৎ আমার স্বামী লাঠি দিয়ে এলোপাতাড়ীভাবে পিটিয়ে আমার শরীরের বিভিন্ন স্থানে নীলা ফোলা জখম করে দেয়। এরপর সে খাটের নিচ হতে লোহার শাবল বের করে হত্যার উদ্দেশ্যে আমার মাথায় সজোরে আঘাত করতে গেলে আমি একটু পাশে সরে গেলে ঐ আঘাত আমার মেরুদন্ডে লেগে হাড়ভাঙা গুরুতর জখম হই। এছাড়াও আসামীগণ আমার গলার উপর পা দিয়ে দাঁড়িয়ে হত্যার চেষ্টা করে। এরপরে এলাকার লোকজনের সহায়তায় পুলিশ আমাকে উদ্বার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। ১৫বছর বয়সী রিয়ামনি বলেন, ঐদিন রাতে আমার আম্মুকে আমার আব্বু চুলের মুঠো ধরে মারছিল। পরে খাটের নিচে থেকে শাবল বের করেও মেরেছিল। আমার আব্বু, দাদা, চাচারা প্রায় আমার আম্মুর সাথে গন্ডগোল করে। ওরা ওইদিন রাতে আমাদের দুইভাইবোনকে ঘরের বাইরে বের করে দিয়ে আমার আম্মুকে খুব মেরেছিল। ৬বছর বয়সী রাকিবুল হাসান বলেন, আব্বু আম্মুকে মারে খুব। আম্মুর মার দেখে আমরা ভয় পায়। নির্যাতিতা গৃহবধূর ছোট বোন শাহানারা মুঠোফোনে প্রতিবেদক কে জানান, ঐ রাতে আমি আমার বোনের নির্যাতনের খবর পেয়ে ৯৯৯ এ কল দিয়ে পুলিশের সাহায্য চেয়েছিলাম। পরে পুলিশ আমার বোন কে উদ্বার করে হাসপাতালে পাঠিয়েছিল। এদিকে নির্যাতিতা গৃহবধূ কোহিনূর খাতুন বাদী হয়ে নির্যাতনকারী আসামীদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছিল বলে শেষ খবরে জানা যায়।






Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *