সমাজের আলো: ডেভন কনওয়ে ও ড্যারিল মিচেলের অভিষেক সেঞ্চুরিতে রান পাহাড়ে চাপা পড়ছে বাংলাদেশ। আগেই সিরিজ হারানো বাংলাদেশকে হোয়াইটওয়াশ এড়াতে গড়তে হবে নতুন রেকর্ড। কনওয়ে খেলেছেন ১২৬ রানের অসাধারণ ইনিংস। আর ইনিংসের শেষ বলে সেঞ্চুরি পাওয়া মিচেল অপরাজিত ছিলেন ১০০ রানে। এই দুই ব্যাটসম্যানের বীরত্বে ওয়েলিংটনের তৃতীয় ওয়ানডেতে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৬ উইকেটে ৩১৮ রান করেছে নিউজিল্যান্ড। জিততে হলে তাই রেকর্ড গড়তে হবে বাংলাদেশকে।নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ স্কোর ৩০৯ রানের। ২০১৩ সালে ফতুল্লায় কিউইদের দেওয়া ৩০৭ রানের জবাবে এই স্কোর করেছিল তারা।আর যদি নিউজিল্যান্ডের মাটিতে খেলা ওয়ানডে হিসাব করা হয় তাহলে স্কোরটা আরও কম। নিউজিল্যান্ডে ৫০ ওভারের ক্রিকেটে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ সংগ্রহ ২৮৮। ২০১৫ সালের বিশ্বকাপে হ্যামিল্টনে করেছিল তামিমরা।যদিও শুরুতে স্বাগতিকদের অবস্থা সুবিধার ছিল না। ৫৭ রানে হারিয়েছিল ৩ উইকেট। বড় ধাক্কাটা লেগেছিল অধিনায়ক টম ল্যাথামের বিদায়ে। তামিম ইকবালের দারুণ অধিনায়কত্ব ও বল হাতে নিয়েই সৌম্য সরকারের বাজিমাত, অবশ্যই বাহবা পাবেন তারা। তবে ল্যাথামের উইকেটে সবচেয়ে বেশি কৃতিত্ব পাবেন মেহেদী হাসান মিরাজ। পয়েন্টে তিনি ‘বাজপাখি’ হয়ে উঠেছিলেন বলেই তো আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ানকে তাড়াতাড়ি ফেরাতে পেরেছে বাংলাদেশ।ক্রাইস্টচার্চের মতো জুটি গড়ে দাঁড়িয়ে গিয়েছিলেন কনওয়ে ও ল্যাথাম। কোনও বোলারেই যখন কাজ হচ্ছিল না, তামিম তখন বল তুলে দেন সৌম্যর হাতে। বোলিংয়ে এসে প্রথম ডেলিভারিতেই উইকেট পান সৌম্য। যে উইকেটে মিরাজ কৃতিত্ব পাবেন সবচেয়ে বেশি। ল্যাথামের শট ঝাঁপিয়ে তালুবন্দি করেন তিনি।দ্বিতীয় ওয়ানডেতে নিউজিল্যান্ডের জয়ের নায়ক ল্যাথাম আউট হয়েছেন ১৮ রানে। ৩৩ বলের ইনিংসটি তিনি সাজান ১ বাউন্ডারিতে।তার আগে বল হাতে আলো ছড়িয়েছেন রুবেল হোসেন। প্রথম দুই ওয়ানডেতে দর্শক হয়ে থাকা এই পেসার শেষ ওয়ানডেতে সুযোগ পেয়েই নিজেকে চেনালেন। উইকেটের অপেক্ষায় থাকতে হয়েছে তাকে মাত্র ৯ বল। মার্টিন গাপটিল ভয়ঙ্কর (২৬) হয়ে ওঠার আগেই তাকে ফিরিয়ে উইকেট উৎসব শুরু তার। ডানহাতি পেসারের বল পুল করতে গিয়ে কিউই ওপেনার ধরা পড়েন মিড-অনে লিটন দাসের হাতে। নিজের পরের ওভারেই আবার উইকেট উদযাপন করেছেন রুবেল। হ্যামস্ট্রিং চোট কাটিয়ে একাদশে ফেরা রস টেলরকে ফিরিয়ে বাংলাদেশেকে দিয়েছে বড় উপহার।যদিও তার আগে ছিল আক্ষেপের গল্পও। ১ বল আগেই টেলরের উইকেট পেতে পারতেন রুবেল। কিন্তু হয়নি মোস্তাফিজুর রহমানের ক্যাচ মিসে। মিডউইকেটে সহজ ক্যাচ ছাড়েন এই পেসার। পরের বলে টেলর একই জায়গা দিয়ে বাউন্ডারি হাঁকালে আক্ষেপ আরও বাড়ে। যদিও সেই আক্ষেপ জুড়াতে সময় লাগেনি। রুবেলের বলে টেলরের ব্যাট ছুঁয়ে আসা বল গ্লাভসবন্দি করতে এবার ভুল হয়নি মুশফিকুর রহিমের। ফেরার আগে টেলর করেন ৭ রান।বাংলাদেশের ক্যাচ মিস চলেছে ওয়েলিংটনেও। ক্রাইস্টচার্চে উইকেটের পেছনে নড়বড়ে মুশফিকুর রহিমই ফুটে উঠলেন ওয়েলিংটনের তৃতীয় ওয়ানডেতে। আবারও ক্যাচ ছেড়েছেন এই উইকেটকিপার। তবে তার ‘শাপমোচন’ করেছেন লিটন দাস। যে হেনরি নিকোলসকে দ্বিতীয় জীবন দিয়েছিলেন মুশফিক, তার ক্যাচই নিয়েছেন লিটন।তাই তাসকিন আহমেদের আক্ষেপ দূর হতে সময় লাগেনি। ১ বল আগেই নিকোলসকে সাজঘরে ফেরানোর দারুণ সুযোগ তৈরি করেছিলেন এই পেসার। তার বাউন্স পাওয়া আউট সুইঙ্গার কিউই ওপেনারের ব্যাট ছুঁয়ে গেলে মুশফিক ঝাঁপিয়েও গ্লাভসে রাখতে পারেননি। উল্টো বল ছুটে গিয়ে দ্বিতীয় জীবনের সঙ্গে বাউন্ডারি পান নিকোলস।হতাশায় ডুবে যাওয়া তাসকিন ও বাংলাদেশ ১ বল পরই পায় সাফল্য। নিকোলসের ব্যাট ছুঁয়ে যাওয়া বল গালিতে থাকা লিটন তালুবন্দি করতে ভুল করেননি। তাতে বাংলাদেশ পায় প্রথম উইকেট। আউট হওয়ার আগে বাঁহাতি ব্যাটসম্যান ২১ বলে ২ বাউন্ডারিতে করেন ২৬ রান।বাংলাদেশের সবচেয়ে সফল বোলার রুবেল। এই পেসার ১০ ওভারে ৭০ রান দিয়ে পেয়েছেন ৩ উইকেট। আর একটি করে উইকেট নিয়েছেন মোস্তাফিজ, তাসকিন ও সৌম্য।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *