সমাজের আলো :
সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন এলাকায় মাদ্রাসা শিক্ষকদের মাধ্যমে মাদ্রাসার ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের যৌন নিপীড়নের ঘটনা উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে। শিক্ষার্থীদের যৌন নিপীড়নের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে বেশ কয়েকজন মাদ্রাসা শিক্ষক গ্রেপ্তারও হয়েছেন। বিভিন্ন মাদ্রাসায় যৌন নিপীড়নের এই পরিস্থিতি উদ্বেগজনক বলে মন্তব্য করে বিশ্লেষকরা বলছেন, দেশের বিভিন্ন মাদ্রাসায় অনেক আগে থেকেই শিক্ষার্থীরা যৌন নিপীড়নের শিকার হলেও আগে এসব খবর গণমাধ্যমে আসত না।

বিকৃত মানসিকতার যৌনাসক্ত এসব শিক্ষকদের কামনার বলি হচ্ছে এসব ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা। এখন সারা দেশে ধর্ষণ-যৌন নিপীড়নের বিরুদ্ধে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ সোচ্চার হওয়ার খবর সংবাদমাধ্যমে বেশি প্রকাশিত হচ্ছে। এদিকে মাদ্রাসা শিক্ষা পরিচালনার সঙ্গে সম্পৃক্ত কর্মকর্তা এবং শিক্ষকরাও চিন্তিত। যৌন নিপীড়ন বন্ধে করণীয় ঠিক করার ব্যাপারে তাদের মধ্যে আলোচনা চলছে।

সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজন চট্টগ্রাম জেলার সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আকতার কবির চৌধুরী ভোরের কাগজকে বলেন, নারীর প্রতি সব চাইতে ঘৃন্য, নিকৃষ্টতম ঘটনা হচ্ছে ধর্ষণ। একইভাবে শিশুদের প্রতি বিকৃত রুচির মানুষ রুপি নরপশুদের জঘন্যতম ঘটনা বলাৎকার, যা নিরবে-নিভৃতে নিয়মিত সংগঠিত হচ্ছে। জঘন্যতম অপরাধ ধর্ষণের জন্য মৃত্যুদন্ডের বিধান করে আইনের সংশোধন আনা হয়েছে। বলাৎকারের অপরাধীর ক্ষেত্রে সম শাস্তির বিধান নয় কেন? বলাৎকার বা শিশুদের যৌন নিপীড়নের জঘন্য অপরাধ রোধে কঠিন শাস্তির বিধান রেখে আইন প্রণয়ন জরুরি।

তিনি আরো বলেন, মাদ্রাসাগুলোতে দীর্ঘদিন ধরে মানুষরূপী নরপশুরা অবুঝ শিশুদের যৌন নিপীড়ন করে আসছে। এখন সময় এসেছে এর বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার। নজরদারি ও তদারকি বাড়ানো জরুরি।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *